1. niloykhan1@gmail.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  2. mdfarukhossain096@gmail.com : faruk khan : faruk khan
  3. Seikhlekhun321@gmail.com : room news : room news
  4. shahinurislam6246@gmail.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
শনিবার, ২১ মে ২০২২, ১১:৩১ পূর্বাহ্ন

সোনারগাঁয়ে করিমের মৃত্যু নিয়ে রহস্য, হত্যা না স্বাভাবিক মৃত্যু

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২২ এপ্রিল, ২০২২
  • ৫৮ Time View

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ-
সোনারগাঁয়ে গত বুধবার করিম সরকার (৭০) নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে আর এই মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ধূম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে মারা যাওয়া বৃদ্ধের স্বজনদের দাবি গত ১৩ এপ্রিল বারদী বাজারে দুই পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় আহত হয়েই তিনি গত বুধবার মারা গেছেন।

অপরদিকে স্থানীয়রা জানান, করিম সরকার দীর্ঘদিন যাবৎ যক্ষা ও শ্বাসকষ্টসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে বিছানায় শায়িত ছিলেন।

এদিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায় মারামারির ঘটনায় করিম সরকারকেও হাসপাতালে আনা হয়েছিল তবে তার শরীরে কোন জখম ও গুরুতর কোন সমস্যা না থাকায় তাকে ঐদিনই ছেড়ে দেয়া হয়।

সংঘর্ষে আহত হয়ে মৃত্যুর অভিযোগ আনলে সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা হাসপাতালে গিয়ে করিমের লাশের সুরতাহাল করেন। এ সময় তারা লাশের শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন পায়নি বলে নিশ্চিত করেছেন।

উল্লেখ্য, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত ১৩ এপ্রিল উপজেলার বারদী ইউনিয়নে মেম্বার নাজমুলের চাচা মুজিবুল্লাহর সাথে ইবুর সমর্থক হাসানের সাথে বংশ নিয়ে তর্ক হয়। এক পর্যায়ে দুই জনের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে
অর্তকিত ভাবে মুজিবুল্লাহ এর সাথে থাকা সাবেক ইউপি সদস্য তাজুল ইসলামের উপর অর্তকিত হামলা চালায় ইবুর সমর্থকরা। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে বর্তমান ইউপি সদস্য নাজমুল ঘটনাস্থলে এসে বিবাদ মিমাংশা করার চেষ্টা করলে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে রূপ নেয়। দফায় দফায় সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ১৫ জন আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লক্সে ভর্তি করা হয়। এরমধ্যে আশংকাজনক অবস্থায় জাকির, সামসুলকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। এর মধ্যে মৃত করিমও হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে যান। যিনি গত বুধবার বিকেলে মারা যান। এঘটনায় গত ১৩ এপ্রিল তারিখ রাতে উভয় পক্ষের পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়।

মৃত করিমের ছেলে সাদেকের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তার বাবা মারা গেছেন তিনি অসুস্থ কথা বলতে পারবেন না। এর আগে সাদেক সরকার তার বাবা করিম সরকারকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ এনে তার চাচাতো ভাই সাবেক ইউপি সদস্য দাইয়ান মেম্বার, ভাজিতা নাজমুল ও পার্শ্ববরতী আলী মিয়াসহ তিনজনের নাম উল্লেখ করে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক করিম সরকারের কয়েকজন স্বজন জানান, আমরা দেখেছি করিম সরকার দীর্ঘদিন যাবত স্বাসকষ্ট ও টিভি রোগে আক্রান্ত ছিলেন, তিনি সোহরাওয়াদী হাসপাতালে নিয়মিত চিকিৎসা নিয়েছেন। কাল বিকেলে শুনলাম তিনি মারা গেছেন।

এ ব্যাপারে সাবেক ইউপি সদস্য দাইয়ান মেম্বার জানান, আব্দুল করিম সর্ম্পকে আমার চাচা, আমার জানা মতে তিনি দীর্ঘদিন অসুস্থ হয়ে বিছানাতে ছিলেন। গতকাল জানলাম তিনি নাকি সংঘর্ষে আহত হয়ে মারা গেছেন। মারা যাওয়ার পর শুনলাম আমরা নাকি তাকে পিটিয়ে হত্যা করেছি এ অভিযোগ এনে সোনারগাঁ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

এ ব্যাপারে সোনারগাঁ থানার ওসি অপারেশন মোহাম্মদ মাহফুজুর রহমান জানান, করিম সরকারের মৃত্যুর ঘটনা শুনার পর পরই আমি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যাই। তখন করিম সরকারের লাশটি বারান্দায় শায়িত অবস্থায় পড়ে ছিল। তখন তাকে দেখে স্বাভাবিক মৃত্যুর মতো মনে হয়েছে। শরীরে কোথায় কোন আঘাত বা জখমের চিহৃ দেখতে পাইনি। এর কিছুক্ষন পরই অফিসার ইনচার্জ সেখানে গিয়ে তিনি করিম সরকারের লাশটি দেখে থানায় নিয়ে আসেন।

সোনারগাঁ থানার ওসি মো. হাফিজুর রহমান পিপিএম(বার) জানান, করিম সরকারের মৃত্যুর পর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ছুটে যাই। এসময় তার দেহে কোন জখম বা আঘাতের চিহৃ ছিলনা। লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলা হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়না তদন্তের রির্পোট পেলে বিস্তারিত জানা যাবে। তিনি আরো জানান, এ ঘটনায় করিম সরকারের ছেলে সাদেক সরকার একটি হত্যার অভিযোগ দায়ের করেছেন। ময়না তদন্তের রির্পোট হাতে পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার সজিব রায়হান জানান, মৃত করিম সরকার গতকাল বুধবার সকালে প্রচন্ড স্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে আসেন। তখন তাকে দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। বিকেলে তার স্বজনরা তাকে নিয়ে আবার হাসপাতালে এসে জানান, রাস্তায় জ্যাম থাকার কারনে ঢাকা হাসপাতালে নিয়ে যেতে পারেনি। সেই জন্য আবার এখানে নিয়ে এসেছেন। আসার পরই কর্তব্যরত চিকিৎসক দেখেন হাসপাতালে আসার আগেই রোগী মারা গেছেন।

এ ব্যাপারে সোনারগাঁ স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সাবরিনা হক জানান, মৃত করিম সাহেব গত ১৩ তারিখে শারীরিক সমস্যা নিয়ে হাসপাতালে এসেছিলেন। তখন মেজর কোন সমস্যা না থাকায় বাড়িতে চলে যান। গতকাল সকালে তিনি আবার প্রচন্ড স্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে আসেন। এখানে তাকে সুস্থ করার মতো সরঞ্জামাদি না থাকায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। বিকেলে আবার তাকে তার স্বজনরা হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করে। তিনি আরো জানান, আমি যতটুকু জানি তিনি নরমান স্বাসকষ্টে মারা গেছেন এটার সাথে শারীরিক ইনজুরির কোন সর্স্পক নেই।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশরত্ন.কম
Develper By ITSadik.Xyz