কালীগঞ্জে ছেলের উপর হামলাকারীদের বিচারের দাবীতে বাবা-মায়ের সংবাদ সম্মেলন

লালমনিরহাট প্রতিনিধি।।

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার চন্দ্রপুর ইউনিয়নের চাপারহাটে জেলা জর্জ কোর্টের (এপিপি) আহসান হাবীব সবুজকে হত্যার উদ্দেশ্যে নির্মমভাবে কুপিয়ে যখম কারী সকল আসামীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ভিকটিমের পরিবার।

২২জুলাই বিকেলে কালিগঞ্জ উপজেলার চাপারহাট এলাকায় নিজস্ব বাস ভবনে সংবাদ সম্মেলন করেন এ্যাডভোকেট আহসান হাবীব সবুজের বাবা এবং মামলার বাদী মজির উদ্দিন আহম্মেদ।

মামলার অভিযোগসুত্রে জানা গেছে, গত বছরের ৮ অক্টোবর আহসান হাবীবের ভাতিজীর সাথে বিবাহ বিচ্ছেদের ঘটনাকে কেন্দ্র করে মামলার আসামী রাজা মিয়া, রাকিবুল ইসলাম রাকিব, আরিফুল ইসলাম কাজল, রেজাউল এবং ভাতিজী জামাই তৌহিদুর রহমান তুর্য্য হত্যার উদ্দেশ্যে দেশীয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জর্জ কোর্টের (এপিপি) আহসান হাবীবকে গুরুতর আহত করে পালিয়ে যায়।

পরিবারের সদস্যগণ ও গ্রামবাসীরা গুরুতর আহত অবস্থায় আহসান হাবীব সবুজকে উদ্ধার করে কালিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান এবং পরবর্তীতে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে অবস্থার আশংকাজনক হওয়ায় জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিউট(NICVD) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ঘটনার পর আহসান হাবীব সবুজের পিতা মোঃ মজির উদ্দিন আহম্মেদ রাজা মিয়াসহ পাঁচজনকে আসামি করে কালিগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেন। (মামলা নং- ১২/৩১৪)

অভিযোগের ভিত্তিতে মামলার ৪ নং আসামি রেজাউলকে কালীগঞ্জ থানা পুলিশ গ্রেফতার করলেও বাকি আসামীগণ জামিনে রয়েছেন বলে জানা গেছে।

সংবাদ সম্মেলনে মামলার বাদী মজির উদ্দিন আহম্মেদ বলেন, আমার ছেলে আহসান হাবীব সবুজকে হত্যার উদ্দেশ্যে যারা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করেছে তাদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হউক।

তিনি আরও বলেন, আমার ছেলে এখন পঙ্গুপ্রায় জীবন-যাপন করছে, সেই হামলার পর তার হাতে অসংখ্য কাটাছেঁড়া ও সেলাই করা হয়েছে। তার স্বাভাবিক জীবনযাত্রা যারা ধ্বংস করে দিয়েছে তাদেরকে আইনের আওয়াতায় এনে উপযুক্ত শাস্তি কামনা করছি।

হামলার শিকার এ্যাড আহসান হাবীব সবুজ বলেন, অভিযুক্ত আসামীরা আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে আক্রমণ করে যখম করে পালিয়ে যান। আমার বাম হাতটি ধারালো অস্ত্রের কোপে বিকলঙ্গ হয়ে আছে।

ওই ঘটনার পর চিকিৎসা খরচ চালাতে গিয়ে আমার পরিবার নিঃস্ব হয়ে গেছে। কাজকর্মে আগের অবস্থানে ফিরতে না পারায় পরিবারের সদস্যদের নিয়ে আমি অসহায়ত্ব হয়ে পড়েছি।

এ্যাডঃ আহসান হাবীব সবুজের মা রাহেলা বেগম কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, আমার ছেলেকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলাকারীরা এখনো ঘুরে বেড়াচ্ছে, তাদের গ্রেফতারের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জন্য সাংবাদিকদের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এই বিভাগের সর্বশেষ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button