1. niloykhan1@gmail.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  2. mdfarukhossain096@gmail.com : faruk khan : faruk khan
  3. Seikhlekhun321@gmail.com : room news : room news
  4. shahinurislam6246@gmail.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:১৮ পূর্বাহ্ন

লালমনিরহাট পুলিশ মানবতার ফেরিওয়ালা

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর, ২০২১
  • ২ Time View

লালমনিরহাটের পুলিশ সুপার আবিদা সুলতানা যোগদানের পর থেকে বাংলাদেশ পুলিশ বিভাগের লালমনিরহাট জেলা পুলিশের আমল পরিবর্তন ঘটেছে। এখন বিনা টাকায় থানায় মামলা ও জিডি করা হচ্ছে। বিশেষ করে বাদীও বিবাদী মামলায় জড়িয়ে আর্থিক ভাবে ক্ষতি না হয়। সে জন্য থানায় অভিযোগ পাওয়ার পর পুলিশ সুপারের নির্দেশনায় সংশ্লিষ্ট থানার ওসিগন উভয় কে ডেকে তাদের নিজেদের মাঝে ভূল- বুঝাবুঝি থানায় বসে নিরসন করে দেন। অপরদিকে পুলিশ সুপার লালমনিরহাটে যোগদানের পর নারী ঘটিত মামলা গুলো তিনি নিজেই সরে জমিনে তদন্ত করেন। এছাড়া মাদক, জুয়া, বাল্যবিবাহসহ নানা অপরাধ মূলক কর্মকান্ড প্রতিরোধে অভিযান অব্যহত রেখেছেন। এর পাশা- পাশি গরীব অসহায় পরিবারের মাঝেও আর্থিক সাহায্য দিয়ে প্রশংসা কুড়িয়েছেন। তারই ধারাবাহিকতায় এবং তার আর্দশ কে স্বরন করে লালমনিরহাট সদর থানার এস আই মোঃ নুর আলম একটি অসহায় হিন্দু পরিবারের মহিলা কে কুড়িগ্রাম সদর থানায় দায়ের করা মামলার ওয়ারেন্ট ভুক্ত আসামী ময়না রানী (৪৫) কে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরন করেন এবং তার পারিবারিক করুন অবস্থা দেখে ওই দিনেই এস আই মোঃ নুর আলম তার নিজের টাকায় একজন আইনজীবী দিয়ে সংশ্লিষ্ট আদালতে ময়না রানীর জামিন আবেদন চাইলে আদালত তার জামিন মন্জুর করেন। সংশ্লিষ্ট সূএে জানা গেছে, লালমনিরহাট সদর উপজেলার মহেন্দ্রনগর ইউনিয়নের নিজপাড়া গ্রামের হতদরিদ্র সুকুমার রায়ের স্ত্রী ময়না রানী। স্বামী-স্ত্রী ২ জনে একই উপজেলার হারাটী ইউনিয়নের ঢাকনাই গ্রামের বাসিন্দা এবং বুড়ির দীঘি উচ্চ বিদ্যালয়ের বিএসসি শিক্ষক মরহুম সাবেদ আলীর সাথে কুড়িগ্রাম জেলার জনৈক ব্যক্তির সাথে টাকা নেন- দেনের সময় ময়না রানী ও তার স্বামী জামিনদার হয়। কিন্ত বিধিবাম উক্ত শিক্ষক মারা গেলে জামিনদার হিসেবে ওই ব্যক্তি টাকা দাবি করে সে টাকা সময় মতো না দিলে স্বামী -স্ত্রী কে জড়িয়ে মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং২০৫/১৮, ধারাঃ ৪২০/৪০৬। এ মামলার ওয়ারেন্ট ভুক্ত আসামী ছিল ময়না রানী। ওই টাকা পরিশোধ করার জন্য ২ শিশু সন্তান কে বাড়িতে রেখে স্বামী -স্ত্রী ২ জনেই ঢাকায় গিয়ে শ্রমিকের কাজ করে উক্ত টাকা পরিশোধ করবেন। কিন্ত ঢাকা যাওয়ার পর ময়না রানী ছোট শিশু সন্তান অসুস্থ্য হওয়ার খবর শুনে বাড়িতে এলে পুলিশ তাকে গত সোমবার গ্রেফতার করেন। ময়না রানী হতদরিদ্র জামিন করার মতো কোন টাকা – পয়সা নেই। তার পারিবারিক করুন অবস্থা দেখে মানবতার ফেরিওয়ালা এস আই মোঃ নুর আলম তার নিজের টাকা দিয়ে জামিনের ব্যবস্তা করা হলে ময়না রানী ওই দিন মুক্ত হন। ময়না রানী জামিনে বেড়িয়ে এস আই মোঃ নুর আলম কে ধন্যবাদ জানান। তার এমন মানবিকতায় এলাকায় প্রশংসিত হয়েছেন। সূএ জানান, এস আই মোঃ নুর আলম তার পেশাগত দক্ষতায় একাধিক বার শ্রেষ্ঠ এস আই নির্বাচিত হয়েছেন৷ নম্র-ভদ্র ওই পুলিশ অফিসার লালমনিরহাট জেলায় মাদক অভিযানে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছেন।
ছবি ক্যাপশনঃ- জামিনে মুক্ত হয়ে ময়না রানী আদালত থেকে বেড়িয়ে আসছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | দৈনিক দেশরত্ন.কম
Develper By ITSadik.Xyz