খুলনার দাকোপের পোদ্দারগঞ্জ বাজার থেকে শিংজোড়া ট্যাংরার চর পর্যন্ত প্রায় ছয় কিঃ মিঃ রাস্তার বেহাল দশা

মোঃ শামীম হোসেন- খুলনা প্রতিনিধিঃ- খুলনার দাকোপের পোদ্দারগঞ্জ বাজার থেকে শিংজোড়া ট্যাংরার চর পর্যন্ত প্রায় ছয় কিঃ মিঃ রাস্তার বেহাল দশা যেন দেখার কেউ নেই। এলাকাবাসীর কাছ থেকে জানা যায় বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে চায়নারা রাস্তার কাজ করার সময় রাস্তার সকল ইট তুলে ফেলে পরে রাস্তা হয়েছে ঠিক তবে ইটের কোন খোঁজ নেই কোথায় যেন রাস্তার হাজার হাজার ইট হারিয়ে গেছে। আজও খোঁজ মিলছে না আর আমাদের এই ভাবে বর্ষা মৌসুম কাটাতে হচ্ছে। এখন ঘর থেকে বাহিরে বের হওয়া বড় কষ্টের ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে। তারা আরো বলেন ১২ সেপ্টেম্বর হতে এলাকার ছেলে মেয়েদের স্কুল খুলছে। তাই রাস্তার যে অবস্থা তাতে মনে হয় শিক্ষার্থীরা স্কুলে যেতে পারবে না। এছাড়া এলাকার প্রবীণ জনগোষ্ঠী চলাচল করতে পারেনা। তারা বলেন বৃদ্ধ লোকেরা ও গর্ভবতী নারীরা ঘরে পঙ্গু হয়ে মরছে। এলাকার গাড়ি চালকেরা বলেন আমাদের সকল প্রকার যানবাহন বন্ধ দীর্ঘ দিন ধরে। আমাদের রুটি রুজি বন্ধ জন ভোগান্তি চরমে। এছাড়াও এলাকা ঘুরে কৃষকদের কাছ থেকে জানা যায় নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র আনা নেয়াতেও চরম ভোগান্তিতে আছে এলাকার মানুষেরা। এলাকার সুশীল সমাজ বলেন জরুরী প্রয়োজনে গর্ভবতী নারী, শিশু ও রোগী হাসপাতালে নেয়া সম্ভব হচ্ছে না, মৃত্যুঝুঁকি বাড়ছে। ইট তুলে নিয়ে গেলেও কাদার মধ্যে রয়েছে খোয়া। চলতে গিয়ে আহত হচ্ছে মানুষ। তারা জানান পাঁচটি খেয়াঘাট, একটি লঞ্চঘাট, তিনটি হাইস্কুল, পাঁচটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এই রাস্তা ব্যবহার করে। রাস্তার এই অবস্থা থাকায় আমাদের জীবন দুর্বিশয় হয়ে উঠছে। রাস্তার এই অবস্থার কথা জানতে চাইলে ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী গৌতম সরকার কাকন বলেন, নির্বাচনে আমার প্রতীক মোটরসাইকেল তাই রাস্তা ঠিক করা আগে আমার নিজের জন্য বেশি দরকার। তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন। আমাদের বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগের দাকোপ উপজেলার সাধারণ সম্পাদক অথচ রাস্তার এই অবস্থা। তিনি আরো বলেন, আগামী ২০ সেপ্টেম্বর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আমি চেয়ারম্যান পদে একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছি আমি নির্বাচিত হলে দাকোপ ইউনিয়নকে দালাল, তদবিরবাজ, চাঁদাবাজ, তেলবাজ, তোলাবাজ ও স্বজনপ্রীতি মুক্ত করার স্বপ্ন দেখি । সকল রকম নদী, খাল, জলাভূমি ও সরকারি সম্পত্তি দখল মুক্ত করার বিষয়ে আপোষহীন থাকবো। ভেঙ্গে পড়া প্রতিকুল যোগাযোগ ব্যবস্থাকে সব থেকে অগ্রাধিকার দিয়ে উন্নয়ন ধারায় দাকোপকে মিলাতে চাই। বিশেষ করে বিভিন্ন রাস্তা, ঘাট, ব্রীজ, কার্লভার্ট সহ সকল অবকাঠামোগত উন্নয়নের মধ্য দিয়ে একটি মডেল ইউনিয়ন বিনির্মাণে নিরলস ভাবে কাজ করতে চাই।স্থানীয় সরকার তথা তৃণমূলের পবিত্র এই পরিষদকে চালচোর, ভাতা লুঠেরা, গাছ খেঁকো, ইট রড বালু সিমেন্ট চোর নামক প্রচলিত I’m কলঙ্ক মুক্ত, স্বচ্ছ ও জবাবদিহিতা মুলক জনসম্পৃক্ত একটি আদর্শ ইউনিয়ন গড়তে চাই। রাস্তার এই অবস্থার কথা জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী সঞ্জয় মোড়ল বলেন এটা দুঃখ জনক চায়নাদের কাজ শেষ হয়েছে কবে তবে রাস্তার এমন অবস্থা থাকবে কেন নতুন বাজেট হতে দেরি হলেও রাস্তার যে পুরানো ইট ছিলো তা দিয়েও তো রাস্তা করা যেত। রাস্তার এই অবস্থার কথা জানতে চাইলে বর্তমান চেয়ারম্যান নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বিনয় কৃষ্ণ রায় বলেন রাস্তার কাজ হবে করোনার কারনে ও বর্ষা মৌসুমের কারনে কাজ পিছিয়ে গেছে তাই কাজ খুব তারাতারিই শুরু হবে। তিনি বলেন এলাকার উন্নয়নে আমি মনে প্রাণে কাজ করে যাচ্ছি দাকোপ ইউনিয়নকে একটি মডেল ইউনিয়নে রুপান্তরিত করাই আমার স্বপ্ন। তাই আগামী ২০ তারিখের নির্বাচনে এলাকাবাসী নৌকায় ভোট দিয়ে বর্তমান সরকারের উন্নয়নের গতি ধারা বজায় রাখবে। এদিকে এলাকাবাসীর জোর দাবি সরকারের যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে অতি দ্রুত রাস্তাটির কাজ শুরু করার জন্য এবং জন ভোগান্তির অভিশাপ থেকে দাকোপ ইউনিয়ন বাসীকে মুক্তি দিতে যথাযথ ব্যাবস্থা গ্রহণ করতে।

এই বিভাগের সর্বশেষ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button